Categories
আমার ক্যাম্পাস রাজশাহী

সিলসা রাবি উইং এর এক্সিকিউটিভ রিক্রুটমেন্ট সম্পন্ন

[et_pb_section][et_pb_row][et_pb_column type=”4_4″][et_pb_text]

করোনা মহামারীর কারণে বাংলাদেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ও প্রায় চার মাস হলো বন্ধ। কিন্তু, থেমে নেই সিলসা রাবি উইং এর কার্যক্রম। সকল বিভাগের ক্লাস স্থগিত থাকলেও অনলাইনেই সম্পন্ন হয়েছে রাবি উইং এর এক্সিকিউটিভ রিক্রুটমেন্ট ৩.০।

রেজিস্ট্রেশন, নন-ভার্বাল টেস্ট ও ভার্বাল টেস্ট এ তিনটি ধাপে সম্পন্ন হয়েছে সিলসা রাবি উইং এর এক্সিকিউটিভ রিক্রুটমেন্ট। প্রথম ধাপে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করেছে আগ্রহী শিক্ষার্থীরা।

নন-ভার্বাল টেস্ট এর প্রথম পর্যায়ে রেজিস্ট্রেশন করা শিক্ষার্থীদের অনলাইনে ইংরেজী, Intelligence Quotient (IQ) ও সাধারণ গণিতের উপর ভিত্তি করে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে সারপ্রাইজ রাউন্ডে শিক্ষার্থীদের কিছু টিমে ভাগ করে কেস সলভ করতে দেওয়া হয়েছে।

অতঃপর, সর্বশেষ ধাপ, ভার্বাল টেস্ট এর জন্য কৃতকার্য পরিক্ষার্থীদের মেসেঞ্জার রুমের মাধ্যমে সিলসা রাবি উইং এর পক্ষ থেকে মৌখিকভাবে পরীক্ষা নেওয়ার মাধ্যমে সম্পন্ন হয় সিলসা রাবি এক্সিকিউটিভ রিক্রুটমেন্ট ৩.০।

এছাড়া এক্সিকিউটিভ রিক্রুটমেন্ট শেষে নব্য এক্সিকিউটিভ দের জন্য সিলসা রাবি উইং এর পক্ষ থেকে ‘গুগল মিট’ এর মাধ্যমে আয়োজন করা হয়েছে অনলাইন আইস ব্রেকিং সেশন।

এবছর সিলসা রাবি উইং এক্সিকিউটিভ রিক্রুটমেন্ট ৩.০ এ তিন শতাধিক শিক্ষার্থী আবেদন করেছিলেন এবং তন্মধ্যে ধাপে ধাপে বাছাই এর মাধ্যমে ১২৫ জন শিক্ষার্থীকে এক্সিকিউটিভ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানাতে গিয়ে রাবি উইং এর প্রেসিডেন্ট জনাব শামীম হোসেন বলেন, “নতুন রিক্রুটমেন্টের মাধ্যমে আমরা প্রায় ৪৫ টি বিভাগের শিক্ষার্থীদের একত্রিত করতে পেরেছি, এবং বিভিন্ন ধাপে তাদের পরীক্ষা করে দেখেছি তারা প্রত্যেকেই অসাধারণ মেধাবী। আমাদের মূল লক্ষ্য একটাই, তা হলো অনলাইনের মাধ্যমে আমরা যেন আরো শক্ত ও সুনিপুণভাবে ভর্তিচ্ছুদের সহায়তা করতে পারি, আর সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে কোয়ালিটি এডুকেশন এবং গাইডলাইন প্রদানে সিলসা রাবি উইং আরো বেশি সংকল্পবদ্ধ।”

উল্লেখ্য,   সিলসা হলো সাধারণ শিক্ষার্থীদের কল্যাণের জন্য বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর  শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান যা মাধ্যমিক,উচ্চমাধ্যমিক ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরিক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে একাডেমিক এবং নন একাডেমিক গাইডলাইন দিয়ে থাকে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় উদ্যমী তরুন ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে  “ছাত্রের জন্য ছাত্র” শ্লোগান কে কেন্দ্র করে ফেসবুক গ্রুপ “ড্রিম টু রাজশাহী ইউনিভার্সিটি” খুলার মাধ্যমে সিলসা রাবি উইং যাত্রা শুরু করে।

এম আর/টাইমস

[/et_pb_text][/et_pb_column][/et_pb_row][/et_pb_section]
Categories
আমার ক্যাম্পাস রাজনীতি রাজশাহী

বিদ্যুৎ ও পানির মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে রাবি ছাত্রদলের মানববন্ধন

বিদ্যুৎ ও পানির মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ও বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদল। বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রধান ফটকের সামনে এ মানববন্ধন করেন তারা।

শুরুতে সিনেট ভবনের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও পুলিশের অনুমতি না মেলায় তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে মানববন্ধনে মিলিত হন। পরে সেখানেও পুলিশী বাঁধার সম্মুখীন হওয়ায় তড়িঘড়ি করে মানববন্ধন শেষ করেন তারা।

শাখা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শহীদ সোহরাওয়ার্দী হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক সামসুদ্দিন চৌধুরী সানিন এর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন শাখা ছাত্রদলের প্রচার সম্পাদক মেহেদী হাসান। তিনি বলেন, অগণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত এ সরকারের জনগণের নিকট কোনো দায়িত্ববদ্ধতা নেই। সরকারের অদায়িত্বশীল আচরণে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে জনজীবনের উন্নয়ন। জনভোগান্তির কথা চিন্তা না সরকার বারবার বিদ্যুৎ ও পানির দাম বাড়িয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও তার বক্তব্যে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি করেন তিনি ।

এ সময় মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন শাখা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজু আহমেদ মামুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুলতান আহমেদ রাহি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাশেদ আলী খান, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শফিবুল ইসলাম, সদস্য মাহমুদুল মিঠু, মহানগর ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং মহানগর ছেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মীর খালিদ সহ আরো অনেকে।

Categories
আমার ক্যাম্পাস দেশ রাজশাহী

দাবি মেনে নিতে রাবি প্রশাসনের আশ্বাস, আটক ৪ লাপাত্তা মূল হোতা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থী সোহরাব হোসেনকে মারধরের ঘটনায় আন্দোলন মুখে শিক্ষার্থীদের দেয়া চার দফা দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসে প্রথম দিনের মতো আন্দোলন স্থগিত করেছে শিক্ষার্থীরা।

 আজ শনিবার বিকেল ৩ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে এক বৈঠকে আলোচনা শেষে শিক্ষার্থীদের সকল দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস দেন ফিনান্স বিভাগের সভাপতির পক্ষে ড. আবু সাদেক মো: কামারুজ্জামান ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য আনন্দ কুমার সাহা, ছাত্র উপদেষ্টা লায়লা আরজুমান বানু, সহকারী প্রক্টর ও ফাইন্যান্স বিভাগের বেশ কিছু শিক্ষক।

তবে ২৪ ঘন্টার মধ্যে দাবিগুলোর বাস্তবায়ন না হলে ফের আন্দোলনের ডাক দেবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন তারা।

এর আগে এ ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার বেলা ১১ টা থেকে তিন দফা দাবিতে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী। এসময় উপস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য সহ প্রশাসনের উদ্দেশ্য করে সামনে চার দফা দাবি উত্থাপন করে শিক্ষার্থীরা।

তাদের দাবিগুলো হলো- অনতিবিলম্বে নাহিদ ও আসিফসহ যারা হত্যা চেষ্টায় জড়িত ছিল তাদের গ্রেপ্তার, তাদের স্থায়ীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার, হল প্রশাসন নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থ হওয়ায় হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগ, গুরুতর আহত শিক্ষার্থীর চিকিৎসার সকল ব্যয়ভার বহন করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে এবং মামলার যাবতীয় দায়িত্ব নিতে হবে।

এদিকে এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সোহরাব বাদী হয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মতিহার থানায় হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেছেন বলে নিশ্চিত করেছে নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান।

এঘটনায় প্রাথমিক প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৪ জনকে নিয়ে গেছে পুলিশ। তারা হলেন—

১.আকিমূল ইসলাম রিফাত (ইসলামিক স্টাডিজ ৪র্থ বিভাগ)

২.সূজন (২য় বর্ষ ইসলামিক স্টাডিজ)

৩. আসিফ (লোক প্রশাসন ২য় বর্ষ)

৪. হাসানুজ্জামান (৪র্থ বর্ষ ইসলামি স্টাডিজ)

অপর দিকে ঘটনার মূল হোতা আসিফ ও নাহিদের কোনো হোদিশ পাওয়া যাচ্ছে না।

প্রসঙ্গত, শুক্তবার দিবাগত রাত দেড়টায় ল্যাপটপ চুরির সন্দেহে ছাত্রলীগ কর্মী আসিফ লাকের নেতৃত্বে সোহরাবসহ ফ্যাইনান্স বিভাগের কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শামছুজ্জোহা হলের ছাদ থেকে ডেকে তৃতীয় ব্লকের ২৫৪ নাম্বার কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে সোহরাবকে নানা রকম কথা জিজ্ঞাসাবাদ করে আসিফ লাক ও হুমায়ুন কবির নাহিদ। এক পর্যায়ে বাকবিতন্ডা শুরু হলে তারা দুজন সোহরাবের মাথা ও হাতে পিটাতে থাকে। এক পর্যায়ে সোহরাব রক্তাক্ত হলে তারা মারধর বন্ধ করে। একপর্যায়ে বন্ধুরা মিলে রাবি মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে যায় । অবস্থার অবনতি হলে এ্যাম্বুল্যান্সে করে সোহরাবের বন্ধুরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। তার গায়ে, হাঁটুতে ও মাথায় আঘাতে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। তিনি আট নাম্বার ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার মাথায় ১৫টি সেলাই দেয়া হয়েছে।

মারধরে অভিযুক্ত দুই ছাত্রলীগ কর্মীরা হলেন- ইসলামিক স্টাডিস বিভাগের ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী আসিফ লাক ও বাংলা বিভাগের ৪র্থ শিক্ষার্থী হুমায়ুন কবির নাহিদ। এরা দুইজনেই শামছুজ্জোহা হল শাখা ছাত্রলীগের দায়িত্বে রয়েছেন এবং রাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার অনুসারী।

এম আর/টাইমস

Categories
আমার ক্যাম্পাস দেশ রাজশাহী

এবার রাবি শিক্ষার্থীকে মেরে রক্তাক্ত করলো ছাত্রলীগ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক শিক্ষার্থীকে মেরে মাথা ও হাত ভেঙে দিয়েছে রাবি শাখা ছাত্রলীগের দুই কর্মী।  আহত সোহরাব মিয়া ফাইন্যান্স বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

শুক্রবার দিবাগত রাত একটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ শামসুজ্জোহা হলের তৃতীয় ব্লকের ২৫৪ নং রুমে এ মারধরের ঘটনা ঘটে। আহত অবস্থায় সোহরাব ভোর পর্যন্ত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের আট নম্বর ওয়ার্ডে অপারেশন শেষে অর্থপেডিক্স বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মারধরে অভিযুক্ত দুই ছাত্রলীগ কর্মীরা হলেন আসিফ লাক ও হুমায়ুন কবির নাহিদ। এরা দুইজনই জোহা হল শাখা ছাত্রলীগের দায়িত্বে রয়েছেন এবং রাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার অনুসারী। দুই দিন আগেও এই নাহিদ পুলিশের সাথে ঝামেলায় জড়ায়।

মারধরের ঘটনায় আহত সোহরাব জানান, আমি ও আমার কয়েকজন বন্ধু ও বড় ভাই জ্বোহা হলের ছাদে বসে ছিলাম সেসময় নাহিদ এসে একজনকে আঘাত করেন এবং আমাকে হলের তৃতীয় ব্লকের ২৫৪ নাম্বার রুমে নিয়ে প্রথমে উল্টাপাল্টা প্রশ্ন করে এবং একটি সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ দেয় এবং কোনো কারণ ছাড়াই সে(নাহিদ) স্টিলের পাইপ দিয়ে দুই হাতে ও পায়ে এলোপাথাড়ি আঘাত করা শুরু করে যাতে বাঁ হাতের দুই যায়গায় ভেঙে যায়। তারপাশেই থাকা আসিফ লাক রুমে থাকা শক্ত কাঠ দিয়ে মাথায় সজোরে আঘাত করে এবং মাথা ফেটে যায়।

এক পর্যায়ে সোহরাব রক্তাক্ত হলে তারা মারধর বন্ধ করেন। পরে সোহরাবের বন্ধুরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে বিচারের জন্য বঙ্গবন্ধু হলে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর কাছে নিয়ে গেলে তারা কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে তাকে মেডিকেলে নিয়ে যেতে বলেন এবং সেখান থেকে তাকে রামেকে ভর্তি করানো হয়।

হাসপাতালে সোহরাবের সঙ্গে থাকা তার সহপাঠীরা জানান, সোহরাবের বাম হাতের কনুইয়ের ওপর ও নিচে দুই জায়গায় ভেঙে গেছে। চিকিৎসক জানিয়েছে মাথার তিন জায়গায় মোট ১৫ টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। তার মাথা থেকে প্রচন্ড পরিমাণে রক্তক্ষরণ হয়েছে। আপাতত এক ব্যাগ রক্ত দিয়ে তার সিটিস্ক্যান করানো হয়েছে। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সোহরাবের এক সহপাঠী জানান, গত কয়েকদিন থেকেই আসিক লাক সোহরাবকে নানাভাবে অত্যাচার করে আসছে। তার রুম থেকে চুরি হয়েছিলো যার দোষারপ তিনি সোহরাবকে দিয়ে আসছিলেন এবং এ বিষয় কয়েকদিন আগে কথা বলতে গেলেও  আসিফ লাক সোহরাবকে চড় থাপ্পর মেরেছিল।

এদিকে, মারধরের ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত আসিফ ও নাহিদের মুঠোফোন বন্ধ রয়েছে। তাদের বক্তব্য জানার জন্য একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এম আর/টাইমস

Categories
আমার ক্যাম্পাস দেশ রাজশাহী

রাবি প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আগামীকাল

নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের (রাবি প্রেসক্লাব) ৩৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামীকাল (১৪ নভেম্বর)।

এ উপলক্ষে সকাল সাড়ে ৯ টায় শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে প্রেসক্লাব চত্বরে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান।
বিশেষ অতিথি হিসেবে হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিশ্ববিদ্যালয় উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনন্দ কুমার সাহা, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. লায়লা আরজুমান বানু, প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক ড. প্রভাষ কুমার কর্মকার এবং অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করবেন রাবি প্রেসক্লাবের সভাপতি মানিক রাইহান বাপ্পী।

বুধবার বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম জয়। তিনি বলেন, আমরা ইতিমধ্য প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সকল আয়োজন সম্পন্ন করেছি। প্রতিবারের ন্যায় এবারও অনুষ্ঠানটি সুন্দরভাবে সফল করতে পারবো বলে আশাবাদী।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আমাদের কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে- সকাল সাড়ে ৯ টায় উদ্বোধনী পর্ব, কেক কাটা, ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পয়েন্টে বৃক্ষরোপণ, বনাঢ্য র‌্যালি, স্মৃতিচারণ, সাবেক-বর্তমানদের মাঝে ক্রীড়াপ্রতিযোগিতা, বিকেল সাড়ে ৫ টায় ফানুস উড্ডয়নসহ জাঁকজমকপূর্ন নানা কর্মসূচি।

উল্লেখ্য, রাবি ক্যাম্পাসে ১৯৮৬ সালে সংগঠনটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের পাশাপাশি বিভিন্ন জাতীয় দিবস পালন, ক্যারিয়ার ভিত্তিক কর্মশালাসহ চিত্তবিনোদনের আয়োজন করে থাকে।

এম আর/টাইমস

Categories
আমার ক্যাম্পাস তারুণ্য রাজশাহী

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ রাবি শাখার সভাপতি সানী, সম্পাদক জোবায়ের

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখার নবগঠিত কমিটির সভাপতি পদে নিযুক্ত হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী এস কে সানী এবং সাধারন সম্পাদক পদে  দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী জোবায়ের আহমেদ । 

শনিবার (১২ অক্টোবর) রাবি ক্যাম্পাসে তাদের হাতে কমিটি তুলে দেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আহ্বায়ক ও মুখপাত্র অধ্যাপক ড . আ . ক . ম জামাল উদ্দিন।

 এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযাদ্ধো মঞ্চের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল এবং সাধারণ সম্পাদক আল মামুন ।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ বিশ্বাস করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ রাবি শাখা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিকাশিত হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার ক্ষেত্রে এবং মুক্তিযোদ্ধাদের অধিকার আদায়ে ভূমিকা রাখবে । এ সময় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে আহ্বায়ক অধ্যাপক ড . আ . ক . ম জামাল উদ্দিন  নবনিযুক্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক কে অভিনন্দন মুজিবীয় শুভেচ্ছা জানান ।

প্রসঙ্গত, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়, এবং মুক্তিযোদ্ধাদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে রাবি থেকে বেশ কিছু ক্যান্ডিডেট তাদের সিভি পাঠায় এসকল সিভি যাচাই-বাছাই করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটি ২ বছর মেয়াদে এই কমিটি ঘোষণা করে।

টাইমস/এম আর

Categories
আমার ক্যাম্পাস রাজশাহী

রাবিতে শহীদ শামসুজ্জোহা স্মৃতি বির্তক সপ্তাহের শুরু আগামীকাল

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং ফোরামের (আরইউডিএফ) আয়োজনে রাবিতে সপ্তাহব্যাপী শহীদ শামসুজ্জোহা স্মৃতি বিতর্ক প্রতিযোগিতা শুরু হতে যাচ্ছে আগামীকাল। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মমতাজ উদ্দিন কলা ভবনে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান সংগঠনটির প্রধান নির্বাহী শাওন কাদির জিকো।

সংবাদ সম্মেলনে জিকো আরো জানান, আগামী ১২ সেপ্টেম্বর বিকেলে বিতর্ক প্রতিযোগিতার উদ্বোধন ঘোষনা করা হবে ডিনস কমপ্লেক্সে। ১৩ সেপ্টেম্বর ৩২টি বিভাগের দল নিয়ে ট্যাব ফরম্যাটে শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার আন্তঃবিভাগ বাংলা বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে । আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর একই ফরমেটে ২৪টি দল নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে শহীদ হবিবুর রহমান আন্তঃহল বিতর্ক প্রতিযোগিতা। এছাড়াও থাকছে প্রথমবারের মত ইংরেজী বিতর্ক। এতে অংশ নেবে ১৬টি দল।

এছাড়াও সমাপনী দিনে সমসাময়িক বিষয়ের উপর থাকবে পাবলিক স্পিকিং। শহীদ শামসুজ্জোহা বিতর্ক প্রতিযোগিতার ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ২১ সেপ্টেম্বর শহীদ মিনার মুক্ত মঞ্চে।

উল্লেখ্য, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং ফোরাম ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে যুক্তিবাদী মানুষ তৈরি জন্য মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে প্রকৃত জ্ঞান চর্চা ও মেধা বিকাশের লক্ষ্যে সংগঠনটি  কাজ করে যাচ্ছে।

এম আর/টাইমস

Categories
আমার ক্যাম্পাস রাজশাহী

ক্যান্সারে আক্রান্ত রাবি শিক্ষার্থী নাইমকে ডিসি’র আর্থিক অনুদান

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ক্যান্সারে আক্রান্ত মো: নাইমের চিকিৎসার জন্য আর্থিক অনুদান দিয়েছে মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জ জেলার ডিসি (খাদ্য) মো: সেফাউর রহমান।  বৃহস্পতিবার দুপুরে ডিসির পক্ষে থেকে ছাত্রনেতা অনিক মাহমুদ বনি বিভাগীয় শিক্ষকদের হাতে এ অনুদানের চেক তুলে দেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. একরাম উল্লাহ, সহকারী অধ্যাপক ও সহকারী প্রক্টর এসএম মোখলেসুর রহমান, অধ্যাপক মো: আনসার উদ্দিন, ড. এসএম রাজী, সহযোগী অধ্যাপক মো: তারেক নূর,  মো: মাহমুদুর রহমান, ড.  এমকেএম মাহমুদুল হক, সহকারী অধ্যাপক বিবি মরিয়ম, কামরুন্নাহার ও শিহাব সাগর সহ আরো অনেকে।

উল্লেখ্য, রাবি শিক্ষার্থী নাঈম থাইরয়েড নামক ক্যান্সারে আক্রান্ত।  নাঈম বর্তমানে ঢাকা তেজগাঁও ক্যান্সার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন  আছেন।  তার চিকিৎসার জন্য ৩-৪ লাখ টাকা প্রয়োজন জেনে মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জের দায়িত্বে থাকা এই  ডিসি এগিয়ে আসেন।  মানবিক কার্যক্রমে সোস্যাল মিডিয়াসহ সর্বমহলে প্রশংসিত এই তিনি।    

প্রসঙ্গত, সকলের সহযোগিতা পেলে নাঈম স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে বলে মনে করেন তার সহপাঠীরা।

সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা:

বিকাশঃ ০১৭০১০৮১১৭৪

রকেটঃ ০১৭০৫০৫২৭৮৭৯

Categories
আমার ক্যাম্পাস দেশ রংপুর রাজশাহী

রাজশাহী সিটি কলেজ ছাত্র রাব্বি হত্যার কারণ উদঘাটনে নানা জল্পনা কল্পনা

ভোর রাতে রাস্তার উপর কুপিয়ে হত্যা করা হয় রাজশাহী সিটি কলেজ ছাত্র ফারদিন ইসনা আশারিয়া ওরফে রাব্বিকে। এর কারন উদঘাটনে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা।

মঙ্গলবার বাড়িতে ফেরার আগের দিন বড় বোনকে বলেছিলেন সকালের ট্রেনে বাড়ি ফিরবেন সবার আদরের ছোট ভাই রাব্বি। সেই আশায় বাড়ির সবাই রাব্বির জন্য পথ চেয়ে বসেছিলেন। বড় বোন মোমিতা পারভীন গতকাল সকালে ছোট ভাই কতদূর জানার জন্য যখন ফোন দেন, তখন তিনি জানতে পারেন, রাব্বি আর বাড়ি ফিরবে না। ঘাতকদের চাপাতির কোপে প্রাণপ্রদীপ নিভে গেছে তাঁর। আর সেই খবরে যেন মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে বোন মোমিতার। যে ভাইয়ের জন্য বাড়ির সবাই পথ চেয়েছিলেন, সেই ভাইয়ের লাশ নিতে তখন ছুটে যান রাজশাহীর উদ্দেশ্যে।পরে দুপুর একটার দিকে তাঁরা রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পৌঁছে নিহত রাব্বির লাশ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন দুই বোন।অন্যদিকে পরিবারের অন্য সদস্যরাও যেন শোকে পাথর হয়ে পড়েন।

নিহত রাব্বি রাজশাহী সিটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র। তাঁর বাড়ি দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার মমিনপুর গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের মৃত মোজাফফর হোসেন সরকারের একমাত্র ছেলে।

রাব্বিকে গতকাল মঙ্গলবার ভোর সোয়া ৫টার দিকে রাজশাহী নগরীর হেতেমখাঁ এলাকায় রাস্তার ওপরে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। রাব্বি ওই এলাকার ছোট মসজিদের পাশে একটি মেসে থাকতেন।সেখান থেকেই ভোরে ঘুম থেকে উঠে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন তিনি। রাজশাহী স্টেশন এসে ট্রেন ধরার কথা ছিল রাব্বির। কিন্তু মেস থেকে বের হয়ে পায়ে হেঁটে কিছু দূর যেতেই তাঁকে রাস্তার মধ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি মেস থেকে প্রায় ২০০ গজ দূরে। রাব্বি ওই এলাকার মুনসুর মূহরীর মেসের একটি কক্ষে থাকতেন। তাঁর সঙ্গে শাহেদ আক্তার রুদ্র নামের দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়ুয়া অপর এক শিক্ষার্থীও একই কক্ষে থাকেন। রুদ্র নগরীর শাহমখদুম কলেজের ছাত্র।

পুলিশের সুরতহাল রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, প্রায় ৫ফিট ১০ইঞ্চি লম্বা ফারদিন ইসনা আশারিয়া ওরফে রাব্বি (১৮)। তার মাথার পেছনে একটি বড় কাটা দাগা রয়েছে। এছাড়া শরীরের আর কোনো স্থানে আঘাতের চিহ্ন নাই। রাব্বির পরনে ছিল গেবাডিং প্যান্ট ও আকাশি কালার সার্ট। হাতে ছিল হাতঘড়ি। ঘটনাস্থল থেকে জব্দ তালিকায় মালামাল হিসেবে রাব্বির একটি ট্রাভেল ব্যাগ, মানিব্যাগ, একটি মোবাইল ও একটি হাতঘড়ি জব্দ দেখানো হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মাহবুব আলম।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার একরামুল হক বলেন, হত্যাকাণ্ডের ধরণ দেখে মনে হচ্ছে এটি একটি পরিকল্পিত ঘটনা। তাকে চাপাতি দিয়ে একটি কোপেই হত্যা করা হয়েছে। তবে কেন এবং কারা এই হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আমরা সবদিক বিবেচনা করেই হত্যাকান্ডে তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যাবো। আশা করি দ্রুতই ঘাতকদের আটক করা যাবে।

পুলিশ জানায়, ভোর ছয়টার দিকে রাব্বির লাশ রাস্তার ওপরে পড়ে আছে খবর পেয়ে খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে। তাকে পেছন থেকে মাথায় কোপ দিয়ে হত্যাকারীরা পালিয়ে যায়। এতে ঘটান্তলেই রাস্তার ওপরে লুটিয়ে পড়ে প্রাণ হারান রাব্বি। পুলিশ সেখানে পড়ে থাকা রাব্বির বাড়ি ফেরার জন্য ব্যবহৃত ট্রাভেল ব্যাগটি জব্দ করেছে। তবে কাউকে আটক করতে পারেনি।

নিহত রাব্বির বোন মোমিতা পারভীন পুলিশকে জানিয়েছেন, তাঁরা চার বোন এক ভাই। সবার ছোট ছিল রাব্বি। চার বোনের তিনজনই স্কুল শিক্ষক। অন্য এক বোন ও সবার ছোট রাব্বি এখনো পড়াশোনা করছেন। আগের দিন সোমবার তাঁর সঙ্গে মোবাইল ফোনে রাব্বির কথা হয়। ওইদিন রাব্বি বোনকে জানান, ঈদের ছুটিতে মঙ্গলবার সকাল ৬ টা ২০ মিনিটের ট্রেন ধরে রাব্বি বাড়িতে ফিরবেন। প্রতিবেশী ও সহপাঠি রিপন মাহন্তের সঙ্গে তিনি বাড়িতে ফিরবেন। কিন্তু গতকাল সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে তিনি যখন ভাইকে ফোন দেন, তখন জানতে পারেন রাব্বিকে কে বা কারা বাড়ি ফেরার পথেই রাস্তায় কুপিয়ে হত্যা করেছে। কিন্তু কেন তাঁর ভাইকে হত্যা করা হয়েছে তা তিনি কিছুই জানেন না। খবর পেয়ে পরে পরিবারের লোকজন রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ছুটে আসেন রাব্বির লাশ নিতে।

রাব্বির আরেক বোন মানসুরা পারভীন মনা বলেন, ‘একমাত্র ভাইকে নিয়ে আমাদের ভালোবাসার কোনো কমতি ছিল না। তাকে অনেক আদর-ভালোবাসা দিয়ে আমরা মানুষ করেছি। আজ সেই ভাইকে খুন করলো ঘাতকরা। আমার ভাইয়ের কারো সঙ্গে কোনো ঝামেলা ছিল না। কিন্তু কেন তাকে হত্যা করা হলো। এই হত্যার বিচার আমরা চাই।’

রাব্বির সহপাঠি রিপন মাহন্ত বলেন, ‘বাড়িতে যাওয়ার জন্য আগেরদিনই মোবাইলে ফোনে কথা রাব্বির। এর ৪-৫ দিন আগে রাব্বি নগরীর ঝাউতলা এলাকার একটি মেসে থাকা রিপনের সঙ্গে দেখা করে একসঙ্গে বাড়ি যাওয়ার বিষয়টি পাকা করে আসেন। সেই অনুযায়ী গতকাল ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাব্বিকে ফোন দেন রিপন মহান্ত। কিন্তু রাব্বি আর ফোন ধরছিলেন। শেষে সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে পুলিশ ফোন রিসিভ করে ঘটনাস্থলে রিপনকে ডেকে নেয়।

এদিকে ইভান নামের আরকে যুবক জানান, প্রায় এক বছর ধরে রাব্বি লাইলি কোটেজ নামে নগরীর হেতেম খাঁতে অবস্থিত তাদের মেসেই ভাড়া থাকতেন। কিন্তু গত ১ আগস্ট রাব্বি সেখান থেকে ছোট মসজিদের কাছের ওই মেসে গিয়ে ওঠেন। রাব্বির বোন মনার সহপাঠি হলেন ইভান। পুলিশ প্রথমে রাব্বি হত্যাকান্ডের বিষয়টি ইভানদেরই জানান। এরপর ইভান ও ওই মেসের সহপাঠিরা রাব্বির লাশ এসে সনাক্ত করেন।

রাব্বির আরেক সহপাঠি বাদশা জানান, রাব্বির কারো সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে তাদের জানা নাই। তবে রাব্বি অনেকটা প্রতিবাদি যুবক ছিলেন। কোনো অন্যায় পছন্দ করতেন না। যা বলার মুখের ওপর স্পষ্ট করে বলে দিতেন। তার পরেও কারো সঙ্গে তার ঝামেলা বা দ্বন্দ্ব ছিল বলে তাদের জানা নাই।

এদিকে কলেজ ছাত্র রাব্বি হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান রাজশাহী সিটি কলেজের অধ্যক্ষ সানাউল্লাহ শেখ। তিনি বলেন, ‘রাব্বি মেধাবী শিক্ষার্থী। তার সঙ্গে কারো ঝামেলা আছে বলে জানা নাই। কিন্তু কেন তাকে এভাবে খুন করা হলো ভাবতেই শরীর শিউরে উঠছে।

এদিকে পুলিশের একটি বিশ্বস্ত সূত্র নিশ্চিত করেছে, গতকাল ভোরে যখন রাব্বিকে খুন করা হয়, তখন ওই রাস্তা দিয়ে একজন বৃদ্ধ মসজিদে নামাজ আদায় করতে যাচ্ছিলেন। তিনি রাব্বির সঙ্গে অপর তিজন যুবকের কথাকাটাকাটি হতে দেখেন। তবে ওই বৃদ্ধ কাউকেই চিনতে না পারায় তিনি মসজিদে চলে যান। তবে প্রত্যক্ষদর্শী ওই বৃদ্ধের নাম বলতে পারেনি সূত্রটি।

অন্যদিকে এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় গতকালই থানায় মামলা হয়েছে।

এম আর/টাইমস

Categories
দেশ রাজশাহী সারা দেশ

চাঁপাই’র পাগলা নদী খনন পরিদর্শন করলেন সাংসদ ডা: শিমুল


বিশেষ প্রতিনিধি: চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার শ্যামপুর ইউনিয়নের উমরপুর ও বাজিতপুর ঘাটে পাগলা নদী খনন কাজ পরিদর্শন করেছেন জেলার-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা: সামিল উদ্দীন শিমুল।

শুক্রবার দুপুরে খনন প্রকল্পটি ঘুরে পরিদর্শন করে বিভিন্ন সমস্য চিহ্নিত ও দিক নির্দেশনামূলক পরামর্শ দেন। একইসঙ্গে নদীর পার্শ্ববর্তী কয়েকটি গ্রামের বসবাসরত জনগণে খোঁজ খবর নেন এবং সমস্যার কথাও শুনেন।

ডা. শিমুল এলাকাবাসীদের উদ্দেশ্য বলেন, দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলেছে তারই অংশ হিসেবে পাগলা নদীর খনন প্রকল্পটি বাস্তাবায়ন হচ্ছে। বিগত কয়েকযুগেও এটা করা সম্ভব হয়নি। এতেই প্রমাণিত হয় যে, শেখ হাসিনা নেতৃত্বে যতদিন দেশ আছে ততদিন উন্নয়নের যাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।


এসময় উপস্থিত ছিলেন, শ্যামপুর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা, শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, সাবেক সহ-সভাপতি মিঠুন বিশ্বাসসহ স্থানীয় শতাধিক নেতাকর্মী।


প্রসঙ্গত, চলতি বছরে জুন মাসে পাগলা নদী প্রকল্পটি উদ্বোধন করেছিলেন সাংসদ সামিল উদ্দীন শিমুল।

এম আর/টাইমস